অনলাইনে ফ্রড হওয়া ২০ লক্ষ টাকা প্রাপকদের ফেরত দিলো বীরভূম পুলিশ

অনলাইনে ফ্রড হওয়া ২০ লক্ষ টাকা প্রাপকদের ফেরত দিলো বীরভূম পুলিশ

প্রীতম দাস বীরভূম : ভারতে দিন দিন বেড়ে চলেছে ডিজিটাল লেনদেনের ব্যবহার। আর এই ডিজিটাল লেনদেনের ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে ঘটছে নানান ধরনের প্রতারণার ঘটনা। এই সকল প্রতারণার ঘটনায় সাধারণ মানুষ প্রতিনিয়তই প্রতারিত হয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা খোয়াচ্ছেন। এমনই প্রতারিত হওয়া ২০ লক্ষ টাকার বেশি বীরভূম জেলা সাইবার পুলিশ স্টেশনের তরফ থেকে তুলে দেওয়া হল প্রাপকদের হাতে।

শুক্রবার বীরভূমের পুলিশ লাইনে একটি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ৩৫ জন এমন প্রতারিত হওয়া ব্যক্তির হাতে এই বিপুল পরিমাণ অর্থ তুলে দেওয়া হল। বীরভূম জেলা পুলিশের তরফ থেকে তাদের এই প্রয়াসের নাম দেওয়া হয়েছে ‘অপারেশন ই-প্রাপ্তি’। এই বিপুলসংখ্যক মানুষের বিপুল পরিমাণ অর্থ গত ২০২০ এবং ২০২১ সালের মধ্যে খোয়া গিয়েছিল।

অনুষ্ঠান শেষে বীরভূম জেলা পুলিশ সুপার নগেন্দ্র নাথ ত্রিপাঠী জানান, “গত দেড় দু’বছরের মধ্যে মোট ৩০ লক্ষ টাকার কাছাকাছি প্রতারিত হয় বীরভূমের বিভিন্ন এলাকা থেকে। কাউকে মোবাইল টাওয়ার বসিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে, কাউকে আবার সিম কার্ড বন্ধ হয়ে যাচ্ছে এমন প্রলোভন দেখিয়ে এমন প্রতারণার কাজ করা হয়। এই সকল প্রতারিত হওয়া মোট টাকার মধ্যে ২০ লক্ষ টাকার বেশি উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে এবং তা তুলে দেওয়া হল প্রাপকের হাতে।”

অন্যদিকে বীরভূম জেলা পুলিশ সুপার নগেন্দ্র নাথ ত্রিপাঠী এদিন আরও জানান, “এই সকল কেস স্টাডি করে আমরা যে সকল তথ্য পেয়েছি সেই সকল তথ্য অনুযায়ী আজ থেকেই একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চলেছি। যে ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে অনলাইন শপিং থেকে শুরু করে অন্যান্য ডিজিটাল মাধ্যমে লেনদেনের সময় কিভাবে মানুষ সতর্ক থাকবেন তা নিয়ে বার্তা দেওয়া হবে।”

দীনবন্ধু দে নামে এমন প্রতারিত হওয়া এক ব্যক্তি জানিয়েছেন, “একটি মোবাইল সংস্থার টাওয়ার বসানোর নাম করে আমার কাছ থেকে ধাপে ধাপে ১ লক্ষ ৪১ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছিল। গত ৩ মাস আগে এই টাকা নেওয়া হয়। সেই টাকার সম্পূর্ণটাই আমি ফেরত পেয়েছি। টাকা ফেরত পেয়ে আমি খুশি।”

আরো পড়ুন