অনলাইন শপিংয়ে এই ৫টি জিনিস খেয়াল রাখলে ঠকতে হবে না

অনলাইন শপিংয়ে এই ৫টি জিনিস খেয়াল রাখলে ঠকতে হবে না

নিজস্ব প্রতিবেদন : এমনিতেই বছর কয়েক ধরে ভারতে রমরমা বাজার শুরু করছে অনলাইন শপিং (Online Shoping) সংস্থাগুলি। এরপর আবার যখন করোনা সংক্রমণের কারণে মানুষ গৃহবন্দি হয়ে পড়েন তখন তাদের ব্যবসা শিখরে উঠে। গৃহবন্দি অবস্থায় মানুষ অনলাইনে জিনিসপত্র কেনার দিকে যেভাবে ঝুঁকেছিলেন সেই স্বভাব কিন্তু এখনো ত্যাগ করতে পারেননি।

অনলাইনে শপিং যেমন দিন দিন বেড়েছে ঠিক তেমনি আবার এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে প্রতারকরা ফাঁদ পাতাও শুরু করেছেন। সেই সকল ফাঁদে পড়ে বহু গ্রাহকই এক নিমেষে অ্যাকাউন্ট থেকে হারিয়ে ফেলছেন লক্ষ লক্ষ টাকা। তবে অনলাইনে শপিং করার সময় পাঁচটি জিনিস খেয়াল রাখলেই এই সকল প্রতারণার হাত থেকে মুক্তি মিলতে পারে।

১) টেক বিশেষজ্ঞরা এবং সাইবার বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, অপরিচিত কোন অনলাইন শপিং সাইটে নিজেদের ব্যাঙ্ক ডিটেলস, ডেবিট কার্ড অথবা ক্রেডিট কার্ড তথ্য দেওয়া ঝুঁকিপূর্ণ। কেবলমাত্র পরিচিত এবং জনপ্রিয় অনলাইন শপিং সাইট থেকেই জিনিসপত্র কেনা বুদ্ধিমানের কাজ। এছাড়াও ইমেল এবং বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া সাইট থেকে আসা লিঙ্কে ক্লিক না করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ বলে জানিয়েছেন তারা।

২) অনেক ক্ষেত্রেই প্রতারকরা পরিচিত এবং অনলাইন শপিং সাইটের মতো দেখতে হুবহু ওয়েবসাইট তৈরি করে প্রতারণার ঘটনা ঘটাচ্ছেন। সেক্ষেত্রে শপিং করার সময় অবশ্যই ডোমেন যাচাই করে নেওয়া দরকার। দেখে নিতে হবে আপনি যে সাইটটি ভাবছেন তার বানান এবং অন্যান্য তথ্য সঠিক আছে কিনা সন্দেহ হলেই দেখে নিতে হবে।

৩) অনেক সময় লক্ষ্য করে থাকবেন অপরিচিত কিছু অনলাইন শপিং সাইটে অবিশ্বাস্য ধরনের বেশকিছু অফার দেওয়া হয়ে থাকে। যেমন ৫০,০০০ টাকার জিনিস ১০ বা ১৫ হাজার টাকায় ইত্যাদি। তবে এই সকল অফার নেওয়ার আগে অবশ্যই বুদ্ধি খাটিয়ে অফার নিন।

৪) আর্থিক লেনদেনের ওয়েবসাইটে দেখে নিন সিকিউরিটি সকেট লেয়ার এনক্রিপটেড রয়েছে কি না। এটি বোঝার জন্য সহজ উপায় হলো লিঙ্কের বাঁ দিকে ‘HTTPS’-এর ‘S’ রয়েছে কিনা। এটি না থাকলে অবশ্যই আর্থিক লেনদেন থেকে বিরত থাকাই শ্রেয়।

৫) সুরক্ষিত থাকার ক্ষেত্রে মাঝে মাঝেই নিজেদের ইমেল আইডির পাসওয়ার্ড, ক্রেডিট কার্ড অথবা ডেবিট কার্ডের পিন নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর বদলে নিতে হবে।

আরো পড়ুন