অভিনব পদ্ধতিতে গয়না চুরি রুখতে, আগাম সর্তকতা জারি বীরভূম পুলিশের

অভিনব পদ্ধতিতে গয়না চুরি রুখতে, আগাম সর্তকতা জারি বীরভূম পুলিশের

প্রীতম দাস বীরভূম :-

অভিনব কায়দায় সোনার গয়না ও মূল্যবান বাসনপত্র নিয়ে চম্পট দিচ্ছে দুষ্কৃতীরা। কায়দা করে পরিবারের সদস্যদের বোকা বানিয়ে লক্ষাধিক টাকার জিনিসপত্র চুরি করেছে দুই ব্যক্তি। এমনই ঘটনা ঘটছ্র রাজ্যের কিছু জেলায়। এবার তা নিয়ে জেলাবাসীকে সর্তক বার্তা দিল বীরভূম জেলা পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বীরভূমের কয়েকটি এলাকায় ২৫ বছর এবং ৩৫ বছর বয়সী দুই ব্যক্তি ব্যক্তি ঘোরাফেরা করছে। এলাকায় গিয়ে এলাকার বাসিন্দা অমৃত বাড়িতে ওই দুই ব্যক্তি কাঁসা পিতলের বাসন পালিশ করার কথা বলছে। বাড়ির লোকেরা কিছু বাসনপত্র বের করে দিলে তারা তাঁদের সামনে বেশ কিছু বাসন পালিশ করে। এরপর অভিযুক্তরা ওই বাড়ির লোকেদের জানায় যে তারা সোনা, রুপোর গয়নাও পালিশ করে। অভিযুক্তদের কথা শুনে পরিবারের সদস্যরা বেশ কিছু রুপো ও সোনার গয়নাও পালিশ করে দেওয়ার কথা বলেন।

অভিযোগ উঠেছে যে, তাঁরা ওই দুই ব্যক্তিকে রুপো, ও সোনার হার, বেশ কয়েকটি আংটিসহ সোনার গয়না দিচ্ছেন। সেই সময়ই ওই দুই ব্যক্তি পরিবারের লোকেদের সামনেই পালিশ করার পর রুপোর গয়নাগুলি এক ধরনের পাউডারজাতীয় জিনিসের মধ্যে ভরে কাগজে মুড়ে দিয়ে দেন।

অন্যদিকে, সোনার গয়নাগুলিকেও একটি প্যাকেটের মধ্যে ভরে দিয়ে দেয়। তারা জানায় যে, যেন আধঘণ্টা পর সেই প্যাকেট খোলা হয়। পরে ওই ব্যক্তিরা চলে গেলে দেখাচ্ছে সোনার গয়না সহ মূল্যবান জিনিস তারা নিয়ে পালিয়েছে। অনেকদিন ধরেই এমন প্রতারণা চক্র কাজ করছে বীরভূমের। বিভিন্ন এলাকায়। তবে সম্প্রতি এই চক্রের আরও বাড়বাড়ন্ত লক্ষ্য করা গিয়েছিল, উঠে আসছে ভুরি ভুরি অভিযোগ।

তবে পুলিশ জানিয়েছে যে, প্রতারণা রুখে দেওয়ার জন্য সবার আগে প্রয়োজন সাধারণ মানুষের সচেতনতা। এই বিষয়টিকে উপলব্ধি করেই বীরভূম জেলা পুলিশের তরফ থেকে সিউড়ি থানা সহ বিভিন্ন থানা এলাকায় বড় বড় পোস্টারিং করা শুরু হয়েছে।

পোস্টারিং  ছাড়াও জেলা পুলিশের তরফ থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন ধরনের ভিডিও এবং অডিও বার্তা তৈরি করে আপলোড করা হচ্ছে। পুলিশ চাইছে, এই ভিডিওগুলি সহজেই পৌঁছে যাক সাধারণের কাছে যা দেখে তারা সতর্ক হন৷ যার জেরে প্রতারণার ঘটনা থেকে নিজেরাই নিজেদের রক্ষাকবচ হয়ে দাঁড়ান।

আরো পড়ুন