এক ঘন্টা ট্রেন থামিয়ে সুরা পান করতে গেলেন চালক, বুঝুন কাণ্ড

এক ঘন্টা ট্রেন থামিয়ে সুরা পান করতে গেলেন চালক, বুঝুন কাণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদন : চা অথবা কচুরির জন্য ট্রেন থামানোর ঘটনা এর আগে নজরে এসেছে একাধিকবার। এমন ঘটনা সম্প্রতি ঘটেছিল গত ফেব্রুয়ারি মাসে। যে সময় লক্ষ্য করা যায় রাজস্থানের আলওয়ারের দৌড়পুর ক্রসিংয়ে ট্রেন থামিয়ে এক লোকোমোটিভ চালক কচুরি সংগ্রহ করছেন। এই ঘটনার পর শোরগোল পড়ে যায়। তবে এর থেকেও ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটলো বিহারে।

বিহারে যে ঘটনাটি ঘটেছে সেই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে অভিযোগ, একটি প্যাসেঞ্জার ট্রেনের সহকারি চালক ট্রেন থামিয়ে সুরা পান করতে যান। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওই প্যাসেঞ্জার ট্রেনটি বিহারের ওই স্টেশনে এক ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকে। তীব্র এই গরমে হাঁসফাঁস অবস্থা হয়ে ওঠে ট্রেনের যাত্রীদের। পাশাপাশি এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে চরম হই হট্টগোল শুরু হয় এবং অভিযুক্ত চালককে গ্রেফতার করে জিআরপি।

জানা যাচ্ছে, সমস্তিপুর রেলওয়ে ডিভিশনের ওই প্যাসেঞ্জার ট্রেনটি সমস্তিপুর থেকে সহরসায় যাচ্ছিল। মাঝপথে ওই ট্রেনটি রাজধানী এক্সপ্রেসকে রাস্তা ছাড়ার জন্য দাঁড়ায় হাসানপুর রেল স্টেশনে। সেখানে দাঁড়ানোর পরেই ওই ট্রেনের সহকারি চালক করণবির যাদব বেমালুম ট্রেন থেকে গায়েব হয়ে যান। এরপর সিগন্যাল দেওয়া হলেও ট্রেন থমকে থাকে।

দীর্ঘক্ষন ধরে ট্রেনটি দাঁড়িয়ে থাকার পরিপ্রেক্ষিতে স্টেশন চত্বরে চরম হই হট্টগোল শুরু হলে ওই স্টেশনের স্টেশন ম্যানেজার নিজে সহকারি চালকের খোঁজ শুরু করেন। পাশাপাশি সরকারি চালককে খুঁজতে নামে জিআরপি। শেষ পর্যন্ত তারাই ওই সহকারি চালককে নিকটবর্তী একটি বাজারে মদ্যপ অবস্থায় খুঁজে পায়।

যে সময় ওই চালককে খুঁজে পাওয়া যায় সেই সময় মদ খেয়ে ওই চালককের এমন অবস্থা যে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর ক্ষমতাটুকু নেই। টালমাটাল অবস্থাতেই শেষ পর্যন্ত জিআরপি তাকে গ্রেপ্তার করে এবং ডিভিশনাল রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) অলোক আগরওয়াল এই গোটা ঘটনার তদন্তের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

আরো পড়ুন