কেন্দ্রীয় সরকারের “পুলিশ পদক” সম্মাননা পাচ্ছেন রামপুরহাট থানার আধিকারিক

কেন্দ্রীয় সরকারের “পুলিশ পদক” সম্মাননা পাচ্ছেন রামপুরহাট থানার আধিকারিক

রাত পোহালেই দেশজুড়ে পালিত হবে ৭৫তম স্বাধীনতা দিবস। দিল্লির লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করবেন প্রধানমন্ত্রী। অন্যদিকে কলকাতায় রেড রোডে পতাকা উত্তোলন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরমধ্যে আজ সন্ধ্যায় উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য স্বাধীনতা দিবসে পুলিশ পদক প্রাপদের নাম ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

কর্মক্ষেত্রে দক্ষতা ও কৃতিত্বের স্বীকৃতি হিসাবে প্রতিবছর স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে প্রতিবছরই দেশের কয়েকজন বাছাই করা পুলিশকর্মীকে বিশেষ পদক প্রদান করা হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে। এ বছরেও বিশেষ সম্মান প্রাপকদের নামের তালিকা প্রকাশ করেছে অমিত শাহের মন্ত্রক। তাতে দেখা গিয়েছে পশ্চিমবঙ্গেরও ২৩জন পুলিশকর্মীর নাম রয়েছে।

উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য স্বাধীনতা দিবসে পদক দেওয়া জন্য বাংলা থেকে যে ২৩ জন পুলিশ আধিকারিকদের নাম ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক, তাদের মধ্যে রয়েছে ইন্সপেক্টর দেবাশীষ চক্রবর্তী। তিনি বর্তমানে বীরভূম জেলার রামপুরহাট থানার দায়িত্বে রয়েছেন।

এক সময় বগটুই গণহত্যা কাণ্ডে উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল রামপুরহাটে। শুধু রামপুরহাট বা বীরভূম জেলাতে নয় এর আঁচ পাওয়া গেছিল রাজ্যের সর্বত্র। এরপরই নবান্নের নির্দেশে তড়িঘড়ি রামপুরহাট থানায় ইন্সপেক্টর পদে বসানো হয় দুঁদে এই অফিসারকে। থানায় যোগ দেওয়ার পর থেকেই চুরি ছিনতাই মত ঘটনা যেমন কমেছে, তেমনিই রামপুরহাট থানা এলাকায় নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। বন্ধ হয়েছে দুষ্কৃতিমূলক কাজকর্ম। এক কথায় এলাকার আইন শৃঙ্খলা থেকে সামাজিক সেবামূলক কাজ সবকিছুতেই দৃঢতার ছাপ রেখেছেন তিনি।

কেন্দ্রীয় সরকারের এই বিশেষ সম্মাননা পাওয়ার ঘোষণায় খুশির হাওয়া পুলিশমহলে। দেবাশীষ বাবুর নিজ কর্মদক্ষতাতেই এই পুলিশ পদক সম্মাননা, বলছেন পুলিশকর্মী থেকে এলাকাবাসী সকলেই।

আরো পড়ুন