‘দলবদল এখন ফ্যাশন, বিধায়করা গরু ছাগল নাকি ধরে রাখবো’, দিলীপ ঘোষ

‘দলবদল এখন ফ্যাশন, বিধায়করা গরু ছাগল নাকি ধরে রাখবো’, দিলীপ ঘোষ

বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বীরভূম সফরে এসে বর্তমান দলীয় পরিস্থিতি নিয়ে একাধিক প্রশ্নের উত্তর দেন। এই সকল প্রশ্নের মধ্যে উঠে আসে বিজেপি বিধায়কের দলবদল থেকে বিজেপি নেতা কর্মী এবং বিধায়কদের উপর রুজু হওয়া বিভিন্ন মামলা। আর এই সকল প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, ‘দলবদল এখন ফ্যাশন, বিধায়ক রা তো আর গরু-ছাগল নয় যে ধরে রাখবো।’

দিলীপ ঘোষ এদিন দলবদল প্রসঙ্গে বলেন, “তিন চারজন ছিলেন আছেন যারা কখনো পার্টির সঙ্গে আসেনি। অন্য সংগঠনের লোক নিয়ে আমরা ক্যান্ডিডেট করেছিলাম। তোমাদের পার্টি তো প্রথম থেকেই এতে বিরোধ ছিল। কিন্তু আমরা তাদের জায়গা দিয়েছি, তারা দিতে এসেছেন জনগণের ভোটে। পার্টি তাদের সম্মানের সঙ্গে জায়গা দিয়েছে। কিন্তু তাদের কোনো না কোনো ব্যক্তিগত সমস্যা আছে।”

ব্যক্তিগত সমস্যা নিয়ে তার দাবি, “তাদের থাকা বিভিন্ন ব্যবসা ইত্যাদির জন্য তাদের চাপ দেওয়া হচ্ছে, ভয় দেখানো হচ্ছে। কাউকে লোভ দেখানো হয়েছে এই দেব, সেই দেবো বলে। তাই যারা এগুলো হজম করতে পারছে না তারা চলে যাচ্ছে একদুজন জন।”

মূলত, দিলীপ ঘোষের কথা অনুযায়ী যে সকল বিধায়করা বর্তমানে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে নাম লেখাচ্ছেন তারা নিজেদের লাভ অথবা অন্য কোন দরকারে বিজেপির টিকিটে জিতে বর্তমানে তৃণমূলে চলে যাচ্ছেন। পাশাপাশি তিনি মুকুল রায়ের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘মুকুল রায় যদি যেতে পারেন তাহলে যে কেউ যেতে পারেন।’

পাশাপাশি পার্টি বদল এখন ফ্যাশন হয়েছে এবং তাতেই লাভ, ব্যবসা বলে দাবি করেছেন দিলীপ ঘোষ। সেই সঙ্গে বিজেপির বিধায়কদের ধরে না রাখতে পারার প্রসঙ্গ উঠলে দিলীপ ঘোষ সরাসরি জানান, ‘বিধায়করা কি গরু ছাগল নাকি? আটকে রাখবো? টিএমসি পেরেছে? এত টাকা পয়সা দিয়ে সিন্ডিকেট করে ধরে রাখতে পারে নি। ডজন ডজন লোক পালিয়ে গিয়েছে।”

সেই সঙ্গে তিনি জানান, “যেদিকে পাল্লা ভারী সেদিকে ঢলবেই। সাধারণ লোক এদের শিক্ষা দিক। যেন জিততে না পারে তাহলেই হয়ে যাবে।” এর পাশাপাশি এদিন শুভেন্দু অধিকারীর প্রসঙ্গ উঠলে দিলীপ ঘোষ জানান, “বিজেপিতে এলেই নানান ধরনের কেস হবে মামলা হবে। মুকুলবাবুও যখন ছিলেন তখন হয়েছে। তারপর যেদিন থেকে হাত মিলিয়ে নিলেন আর হয়নি।”

আরো পড়ুন