ফের নিজেকে ষড়যন্ত্রের শিকার বলে দাবী করলেন বগটুই কাণ্ডে মূল অভিযুক্ত আনারুল হোসেন

ফের নিজেকে ষড়যন্ত্রের শিকার বলে দাবী করলেন বগটুই কাণ্ডে মূল অভিযুক্ত আনারুল হোসেন

প্রীতম দাস :-

ঘটনাস্থল থেকে আমার বাড়ি ৭ কিলোমিটার দূরে। ঘটনার সঙ্গে আমার কোন যোগ নেই। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। ঠিক সময়ে বলব। মন্তব্য আনারুল হোসেনের। আজ বগটুই কাণ্ডের মূল অভিযুক্ত আনারুল হোসেনকে স্থানান্তরিত করা হলো সিউড়ি সংশোধনাগারে। রামপুরহাট সংশোধনাগার থেকে বেরিয়ে সিউড়ী রওনা হওয়ার আগে এমন মন্তব্য করেন আনারুল হোসেন।

অন্যদিকে প্রায় তিন মাস সময় পর গত ২১ জুন বগটুইকাণ্ডের চার্জশিট পেশ করে সিবিআই। গত ২১ মার্চ সন্ধ্যায় বগটুইয়ে তৃণমূলের উপপ্রধান ভাদু শেখ খুন আর তারপরই গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা, ওই দুই ঘটনার মামলায় জোড়া চার্জশিট পেশ করে সিবিআই। ঘটনার প্রায় ৯০ দিনের মাথায় এই চার্জশিট পেশ করেছে তারা, তাও মুখবন্ধ খামে। তবে জানা গিয়েছে, এই অগ্নিসংযোগ এর মামলায় চার্জশিটে নাম রয়েছে ঘটনায় অন্যতম মূল অভিযুক্ত আনারুল সহ ১৮ জনের। পাশাপাশি উপপ্রধান ভাদু শেখ খুনের ঘটনায় এখনও অধরা ৪ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত।

গত এপ্রিল মাসে বগটুই-কাণ্ডে আদালতে প্রাথমিক রিপোর্ট পেশ করেছিল সিবিআই। কিন্তু রাজ্য সেই সময় থেকেই সিবিআই তদন্তে আপত্তি জানিয়েছিল তবে তা গ্রাহ্য হয়নি। প্রাথমিক ভাবে রাজ্য সরকার সিট গঠন করে এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছিল। তখন ২২ জনের নাম উল্লেখ করে ঘটনায় জড়িত আরও ৭০- ৮০ জনের বিরুদ্ধে মামলা শুরু হয়। পরে ২০ জনকে গ্রেফতারও করা হয়। তার কিছু দিন পরেই সিবিআই এই ঘটনার তদন্তভার গ্রহণ করে। বগটুই গ্রামে এসে ঘটনাস্থল পর্যবেক্ষণ শুরু হয়, ঘটনাস্থলের ছবি, ভিডিয়োগ্রাফি, ম্যাপ, স্কেচ সবই করা হয়। সিবিআই তদন্ত চলছে। তবে কি কারণে আনারুলকে সিউড়ী সংশোধনাগারে পাঠানো হল তার কারণ স্পষ্ট হয়নি।

আরো পড়ুন