বদলাচ্ছে কর্মীদের কাজের সময়, চাপমুক্ত করতে অভিনব পদক্ষেপ টাটা-র

বদলাচ্ছে কর্মীদের কাজের সময়, চাপমুক্ত করতে অভিনব পদক্ষেপ টাটা-র

নিজস্ব প্রতিবেদন : কাজের চাপ সামাল দিতে সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরেও থাকতে হয় অফিসে। এমনকি অনেক ক্ষেত্রে কাজের এই চাপ থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য আগেভাগে রওনা দিতে হয় অফিসের দিকে। তবে চিরাচরিত এই ধারণায় বদল আনতে চলেছে তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা TCS। এমনকি দৈনিক কাজের সময়ের ক্ষেত্রেও তারা পুরাতন ধারণাকে বদলে ফেলতে চলেছে।

রতন টাটার (Ratan Tata) এই সংস্থা চায়, কাজের সময় ২৫ শতাংশের বেশি হওয়ার প্রয়োজন নেই। আগামী পাঁচ বছর এমনটাই চাইছে এই সংস্থা। দিনে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এক চতুর্থাংশ অর্থাৎ ৬ ঘন্টা দিতে হবে অফিসের জন্য। সংস্থার তরফ থেকে এই মডেলের নাম ‘২৫/২৫’ রাখা হয়েছে।

করোনাকালে অতিমারি পরিস্থিতির জন্য এই সংস্থার তরফ থেকে আগেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, ২৫ শতাংশ কর্মীদেরই অফিসে এসে কাজ করতে হবে। বাকি ৭৫ শতাংশ কর্মী বাড়িতে থেকেই কাজ করতে পারবেন। ২০২৫ সাল পর্যন্ত এই পদ্ধতিতে কাজ চালানো হবে বলে জানানো হয়েছে। ২৫ শতাংশ কর্মীদের অফিসে আসা এবং বাকিদের বাড়িতে থেকে কাজ করার পরিপ্রেক্ষিতেই ১০০ শতাংশ উৎপাদন বজায় থাকবে বলে মনে করছে এই সংস্থা।

এর পরিপ্রেক্ষিতে টিসিএস মুখপাত্র জানিয়েছেন, “এখন আমাদের ৫ শতাংশ সহকর্মী অফিসে বসে কাজ করছেন। চলতি বছরের শেষে আরও বেশি সংখ্যক কর্মীদের অফিসে এসে কাজ করার বিষয়ে উৎসাহিত করা হবে। তার পর আমরা ২৫/২৫ মডেল কার্যকর করবো।”

এই প্রসঙ্গে বলে রাখা ভালো, অফিসে কর্মীদের অতিরিক্ত সময় ব্যয় করার কারণে কর্মীদের মধ্যে তৈরি হচ্ছে মানসিক অবসাদ। এছাড়াও স্বাস্থ্যহানি হওয়া, কাজের প্রতি আগ্রহ হারানোর মতো ঘটনা তো আছেই। বিভিন্ন সমীক্ষায় পরিপ্রেক্ষিতে উঠে এসেছে এই সকল ফলাফল। এইসকল সমীক্ষার ফলাফলের দিকে নজর দেখেই টাটার এই সংস্থা এমন পদক্ষেপ নিয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ মহল।

আরো পড়ুন