বাতিল একাধিক ট্রেন, ভক্ত সমাগম শুন্য তারাপীঠে

বাতিল একাধিক ট্রেন, ভক্ত সমাগম শুন্য তারাপীঠে

ভারতীয় রেলের হাওড়া ডিভিশনের একাধিক ট্রেন বাতিল থাকায় ভক্ত শূন্য হয়ে পড়েছে তারাপীঠ মন্দির। যার জেরে ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন তারাপীঠ মন্দির সংলগ্ন দোকান এবং হোটেল ব্যবসায়ীরা সহ অটোচালকরা। জানা গিয়েছে, মালদা ডিভিশনে তৃতীয় লাইন সম্প্রসারনের কাজ চলায় এমাসের ২৬ তারিখ থেকে ৩১ তারিখ পর্যন্ত পূর্ব রেলের হাওড়া-রামপুরহাট-মালদাগামী একাধিক এক্সপ্রেস ও লোকালট্রেন বাতিল করা হয়েছে। বিগত দু’বছর করোনা পরিস্থিতি কাটিয়ে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরেছিল তারাপীঠ। তবে তারই মধ্যে
সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলিতে ট্রেন বাতিলের ঘোষণা অবশ্যই চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সকলের কপালে।

তারাপীঠ সাধক বামাক্ষ্যাপার অন্যতম সিদ্ধপিঠ। প্রত্যেকদিন দূরদূরান্ত থেকে হাজার হাজার ভক্তের সমাগম হয় এই তারাপীঠের মা তারার মন্দিরে। তবে ট্রেন বাতিল হওয়ায় ভক্ত শূন্য হয়ে পড়েছে তারাপীঠ মন্দির। কারণ তারাপীঠে আগত দর্শনার্থীদের মধ্যে প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ ট্রেনে করে মা তারা দর্শন এ আসেন। এর মধ্যে আগামীকাল শনিবার এবং পরশু রবিবার অর্থাৎ সরকারি ক্যালেন্ডার হিসাবে ছুটির দিন। প্রতি সপ্তাহে এই দুদিন তারাপীঠ মন্দিরে তিল ধারণের জায়গা থাকে না।
অন্যদিকে আবার আগামী পরশু রবিবার হলেও বিশেষ দিন কারণ, সেদিন ফলহারিণী অমাবস্যা। এই দিন মা তারাকে ফল দিয়ে বিশেষভাবে সাজানো হয়। পাশাপাশি চলে মায়ের আরাধনা। দর্শনার্থীরাও মায়ের কাছে ভোগ নিবেদন করে নিজের মনোস্কামনা পূর্ণ করেন। ফলে এদিন মন্দিরে লক্ষাধিক মানুষের ঢল নামে।

ভাদ্র মাসে কৌসিকি অমাবস্যা তিথিতে যে জনসমাগম ঘটে, সেদিকে বিচার করলে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এই ফলহারিণী অমাবস্যা তিথি। কিন্তু ট্রেন বন্ধ থাকায় বড় ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে তারাপীঠ মন্দির সংলগ্ন দোকান এবং হোটেল ব্যবসায়ীরা কারণ হোটেল বুকিং করার পরেও ট্রেন বন্ধ থাকায় ক্যানসেল করতে হচ্ছে বুকিং। স্বাভাবিকভাবেই ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে চিন্তার কথা শুনিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি এই বিশেষ তিথিতে মা তারাকে দর্শনে করতে পারার জন্য আক্ষেপ কথা জানিয়েছেন দর্শনার্থীরাও।

আরো পড়ুন