বাড়ির জোড়া বউ পালালো দুই রাজমিস্ত্রির প্রেমে মজে

বাড়ির জোড়া বউ পালালো দুই রাজমিস্ত্রির প্রেমে মজে

নিজস্ব প্রতিবেদন : একজন নয়, একেবারে বাড়ির জোড়া বউ পালালো দুই রাজমিস্ত্রির প্রেমে মজে, তাও আবার একই সঙ্গে। ভাবতে অবাক লাগলেও এমনই ঘটনা ঘটেছে হাওড়ার বালিতে। বাড়ির দুই গৃহবধূ সহ এক সন্তানের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় তদন্তে নেমে এমনই নাটকীয় মোড় লক্ষ্য করা যায়।

কিভাবে ঘটল এই ঘটনা? জানা যাচ্ছে, ছয় মাস আগে হাওড়ার বালির আনন্দনগর সাঁপুইপাড়া এলাকায় একটি বাড়ি সংস্কারের জন্য এসেছিলেন দুইজন রাজমিস্ত্রি। এই সংস্কারের কাজ চলার সময় প্রথম দেখাতেই বাড়ির দুই গৃহবধূর দুই রাজমিস্ত্রিকে ভালো লাগে। স্বাভাবিকভাবেই ওই দুই গৃহবধূ রাজমিস্ত্রিদেরও পছন্দ হয়। এরপর বাড়িতে কাজ চলাকালীন কর্তাদের অনুপস্থিতিতে দুপুরবেলা চলতো খুঁনসুটিও।

পরে এই দুই গৃহবধূর সঙ্গে ওই দুই রাজমিস্ত্রির প্রেমালাপ হয়। হয় ফোন নম্বর বিনিময়। দেখতে দেখতে তাদের এই প্রেমের সম্পর্ক আরও গভীর রূপ নেয়। এর পরেই ওই দুইজন গৃহবধূ ওই দু’জন রাজমিস্ত্রির সঙ্গে পালানোর সিদ্ধান্ত নেন। ওই দুই গৃহবধূ সহ এক সন্তানের নিখোঁজের ঘটনায় তদন্ত করতে নেমে পুলিশ এমনটাই জানতে পেরেছে বলে জানা যাচ্ছে।

দুজন রাজমিস্ত্রির সঙ্গে পালিয়ে যাওয়া ওই দুই গৃহবধূ হলেন বাড়ির বড় বউ অনন্যা কর্মকার এবং ছোট বউ রিয়া কর্মকার। স্বেচ্ছায় বাড়ি ছেড়ে রাজমিস্ত্রির সঙ্গে এই দুজন গৃহবধূ ছাড়াও যাদের মধ্যে রয়েছে ছোট বউ রিয়া কর্মকারের সাত বছরের সন্তান। পুলিশ দুজনের মোবাইল নম্বর ট্র্যাক করে জানতে পেরেছে, প্রথমে তারা মুর্শিদাবাদ আসেন এবং সেখান থেকে পাড়ি দেন মুম্বই। যদিও মুম্বইয়ে তারা এখন ঠিক কোথায় রয়েছেন তা জানা যায়নি।

তদন্তের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে, ১৫ ডিসেম্বর দুই গৃহবধুর মধ্যে এক গৃহবধূর নম্বরে ফোন আসে। সেখানেই বাড়ি থেকে বেরিয়ে মুর্শিদাবাদ চলে আসার কথা বলা হয় এবং সেই ফোন আসার পরেই তারা একসঙ্গে বাড়ি থেকে বের হয়ে মুর্শিদাবাদ চলে যান। কারা এই গৃহবধূর নম্বরে ফোন করেছিলেন সেই খোঁজ করতে নেমে পুলিশ জানতে পারেন ওই দুই রাজমিস্ত্রির কথা।

আরো পড়ুন