বিশ্বভারতীর পড়ুয়ারাদের আন্দোলন সমর্থনে জাতীয় কংগ্রেস,রবীন্দ্রনাথের ঠাকুর ছবি নিয়ে পদযাত্রা মিচ্ছিল

বিশ্বভারতীর পড়ুয়ারাদের আন্দোলন সমর্থনে জাতীয় কংগ্রেস,রবীন্দ্রনাথের ঠাকুর ছবি নিয়ে পদযাত্রা মিচ্ছিল

বোলপুর- ১ সেপ্টেম্বর : বিশ্বভারতীর ছাত্র-ছাত্রীদের আন্দোলন সমর্থন এবার বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন,।এস.এফ.আই সংগঠনের পর বীরভূম জেলা কংগ্রেস নেতৃত্ব ও হাঁসন বিধানসভার কেন্দ্রর প্রাক্তন বিধায়ক মলিটন রসিদ আন্দোলন কারী পড়ুয়ারাদের পাশে।
পড়ুয়ারাদের আন্দোলন ১০০ ঘন্টার পার করে ষষ্ঠ দিনে পর্দাপন করেছে।
আর একের পর দেশের ইউনিভার্সিটির ছাত্র সংগঠন সমর্থনের পাশাপাশি, রাজনৈতিক সংগঠন বিশ্বভারতীর পাঠরত ৩ ছাত্র ছাত্রীদের সাসপেণ্ড বহিষ্কার প্রত্যাহার ফরমান জন্য সমর্থন করছে।
বুধবার বোলপুর শান্তিনিকেতন রোডের কাছে বিশ্বভারতী ঢোকার মুখে ,বীরভূম জেলা কংগ্রেস নেতৃত্বের উদ্যোগে অস্থায়ী মঞ্চ বানিয়ে সভা করা হয়। এরপর কংগ্রেস সমর্থিত সমর্থনেরা, সভা মঞ্চ থেকে গুরুদেবের ছবি হাতে পদযাত্রা মিচ্ছিল করে উপাচার্য গৃহে পূর্বিতা সামনে উপস্থিত হন।
পড়ুয়ারাদের তৈরি উপাচার্য গৃহের মঞ্চ তারা বক্তব্য আর শ্লোগান দিতে থাকে, ” দড়ি ধরে মারো টান ভিসি হবে খান খান ”
একয় সাথে আরও ভয়ঙ্কর শ্লোগান দিতে শোনা যায় কংগ্রেস কর্মীদের মুখে,যে ‘ভিসির কালো হাত ভেঙে গুড়িয়ে দাও’।

প্রাক্তন বিধায়ক হাঁসন কেন্দ্রর মিলটন রসিদ জানান যে, বর্তমান উপাচার্য আরএসএস ঘনিষ্ঠ ও বিজেপি-র দালাল। ছাত্র ছাত্রীদের সাসপেণ্ড বহিষ্কার অগণতান্ত্রিক। পড়ুয়ারাদের আন্দোলন কে বীরভূম কংগ্রেস সর্মথন করেন। তারা তাদের অধিকার লড়াই করছে। এক জন অ রবীন্দ্র প্রেমী মানুষ কখনো উপাচার্য হিসাবে নিযুক্ত থাকা উচিত না।
একই সাথে বিশ্বভারতীর আচার্য হিসাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নজর দেওয়া উচিত। কংগ্রেস সরকার যখন কেন্দ্রে ছিল কংগ্রেস হয়ে দালালী করতে বলা হয়নি কোনো উপাচার্য কে। এই উপাচার্য আচরণ রবীন্দ্র শিক্ষাঙ্গন কে কুলসিৎ করছে। খুবই দ্রুত অপসারণের চায় উপাচার্যের ।আর ছাত্র ছাত্রীদের বহিষ্কার প্রত্যাহার সাথে আধ্যপক ও আধ্যপিকা দের সাসপেণ্ড প্রত্যাহার। আগামী দিনে রাজ্য কংগ্রেস এই আন্দোলনে পড়ুয়ারাদের পাশে থাকবে।

আরো পড়ুন