বীরভূম জেলা পরিষদের তৃণমূল প্রার্থী হিসাবে মনোননপত্র জমা দিয়ে দিলেন কাজল শেখ

বোলপুর, ১৪ জুন : “মানুষকে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে যদি ভোট করে তাহলে খেলা হবে”, জেলা পরিষদের আসনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর অনুব্রতর বুলি তাঁর যুযুধান নেতা কাজল শেখের মুখে৷ এই প্রথম নির্বাচনী লড়াইয়ে নামলেন নানুরের এই তৃণমূল নেতা৷

একদা বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের বিরোধী গোষ্ঠী হিসাবে পরিচিত ছিলেন নানুরের এই তৃণমূল নেতা কাজল শেখ৷ প্রায় সময় এই দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠেতে দেখা গিয়েছে নানুর৷ বর্তমানে গোরু পাচার মামলায় তিহাড় জেলে বন্দি অনুব্রত৷ সেই অনুব্রতর বিরোধী গোষ্ঠী হিসাবে পরিচিত কাজল শেখ এদিন বোলপুর মহকুমা শাসকের দপ্তরে এসে তৃণমূলের প্রতীক চিহৃতে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন৷

সদ্য নানুর বিধানসভার সিঙ্গি গ্রামে অনুব্রত মণ্ডল ঘনিষ্ঠ নেতার বাড়িতে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে চড়াও হয়ে হামলার অভিযোগ উঠেছে এই কাজল শেখ গোষ্ঠীর লোকজনের বিরুদ্ধে। সেই কাজল শেখ এই প্রথম নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামলেন।

সাংবাদিক মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, “অনুব্রত মণ্ডল আমার রাজনৈতিক গুরু। এখনও বীরভূমে যে সংগঠন, তার ভিত তৈরি করে গিয়েছেন অনুব্রত ও তার টিম। আমি সেই টিম অনুব্রতর সদস্য।”

তিনি আরও বলেন, “উন্নয়ন আর রাস্তায় নেই, বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে গিয়েছে৷ সুতরাং গুরু যে দাওয়াই দিয়ে গিয়েছে, সেই দাওতাই কাজ করবে৷ যদি মানুষের মধ্যে কেউ ভেদাভেদ করতে চায়৷ ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করতে চায়৷ যদি কেউ অর্থের প্রলোভন দিয়ে ভোট করতে চায় তাহলে খেলা হবে।”

অর্থাৎ, অনুব্রত বিরোধী নেতার মুখে অনুব্রতকে গুরু ও অনুব্রতর বুলি খেলা হবে শুনে জোর চর্চা শুরু জেলায়৷

আরো পড়ুন