ভাসাপুরের সেতুটির বেহাল দশা, ঝুঁকির নিয়ে যাতায়াত স্থানীয়দের

ভাসাপুরের সেতুটির বেহাল দশা, ঝুঁকির নিয়ে যাতায়াত স্থানীয়দের

পূর্ব বর্ধমান জেলার গলসির ভাসাপুরে কাছে ডিভিসি সেচ খালের উপরে থাকা পুরাতন সেতুটির বেহাল দশা। নিত্য ঝুঁকি নিয়ে যাতাযাত করছেন স্থানীয়রা।তাদের থেকেই জানা গেছে, সেতুর চাতালের এক অংশ বসে গেছে। পাশাপাশি কয়েক জায়গায় সেতুর গায়ে সিমেন্টের গার্ড রেলিং ভেঙে পরেছে। কয়েক বছর হলেও সেগুলি মেরামতের কোন ব্যবস্থা নেয়নি পঞ্চায়েত ও ব্লক প্রশাসন। তারা বলেন এটি বহু পুরাতন একটি সেতু। যা ১৯৫৮ সালে সেচ দপ্তর নির্মান করেছিল। দীর্ঘদিন সেতুর কোন সংস্কার হয়নি। তারজন্য নিজের রড বেরিয়ে ফাটলও ধরেছে সেতুর মাঝে। তাছাড়া মাঝখানের কিছু অংশ ঝুলে পরেছে নিচের দিকে। ওই সেতুর উপর দিয়ে বেশ কয়েকটি বাসও চলাচল করে। তাছাড়াও নিত্যদিন হাজার হাজার মানুষ জীবন জীবিকার কাজে ওই সেতু পেরিয়ে আসেন। এদিকে পার্শ্ববর্তী গ্রামের ছাত্র ছাত্রীরা গলসি, পুরসা, বুদবুদ ও বর্ধমানের বিভিন্ন স্কুল কলেজে পড়াশোনা করতে যায় ওই সেতু পার হয়ে। হাজার হাজার নিত্যযাত্রী, ব্যবসায়ী দৈনিক ওই সেতু পার হয়ে জাতীয় সড়কে আসেন। সেতুটি ভেঙে পরলে আশেপাশে পোতনা, ভাষাপুল, মনহরসুজাপুর, রাইপুর, আটপাড়া, শিড়রাই, পোতনা, খুরাজ, আমবহুলা, মল্লসারুল, সহ প্রায় দশটি গ্রামের মানুষ বিষম সমস্যায় পরবেন। বর্তমানে প্রশাসন ওটিকে দুর্বল সেতু হিসাবে চিহ্নিত করে বোর্ড লাগিয়ে দিয়েছে। তবে এখনও প্রযন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। সেতুটি ভেঙে পরলে স্কুল কলেজের পড়ুয়া সহ বহু মানুষ সমস্যায় পরবেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তাছাড়া স্থানীয় গ্রামগুলির মানুষদের রুজি-রুটির বেশই সমস্যা হবে। ওই বিষয়ে গলসি ১ নং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সেখ রোকেয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সবরকম সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।

আরো পড়ুন