মদন মিত্রের ঘরে অশান্তি, ফেসবুকে করুণ আর্তি পুত্রবধূর

মদন মিত্রের ঘরে অশান্তি, ফেসবুকে করুণ আর্তি পুত্রবধূর

নিজস্ব প্রতিবেদন : রাজনীতির আঙ্গিনা ছাড়াও বিধায়ক মদন মিত্র বিভিন্ন সময়ে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিনিয়ত নতুন নতুন ভিডিও, মিউজিক অ্যালবাম তৈরি করা ইত্যাদির পাশাপাশি চাঁচাছোলা মন্তব্যের কারণে তাকে চর্চার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে থাকতে লক্ষ্য করা যায়। এবারও এই বিধায়ক মদন মিত্র চর্চায় এসেছেন, তবে তার ঘরে অশান্তির কারণে।

তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্রের পুত্রবধূ স্বাতী রায়, মদন মিত্রের ছেলের বিরুদ্ধে গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগ এনেছেন। এই অভিযোগ আবার সরাসরি ফেসবুকে লাইভ করে জানিয়েছেন তিনি। যদিও এর পরিপ্রেক্ষিতে এখনো পর্যন্ত থানায় কোনো লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়নি বলেই জানা যাচ্ছে। তবে ফেসবুক লাইভে তার করুণ আর্তি, ‘আমাকে বাঁচান। আমি বাঁচতে চাই।’

মদন মিত্রের পুত্রবধূ স্বাতী রায় শনিবার ফেসবুক লাইক করে জানিয়েছেন, দেখাশোনা করে ২০১৪ সালে মদন মিত্রের বড় পুত্রের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। কিন্তু বিয়ের পর পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। তার অভিযোগ, “বিয়ের পর জানতে পারি যার সঙ্গে বিয়ে হয়েছে সে সাইকোপ্যাথ। মুঠো মুঠো ঘুমের ওষুধ খেত। শুধু তাই নয় মদ পান করত।”

এর পাশাপাশি বিধায়কের পুত্রবধূর আরও অভিযোগ, “এরপর আমার গায়ে হাত তুলতে শুরু করল। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করলো। শ্বশুর-শাশুড়ি মারের হাত থেকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছেন। আমি বিচার চেয়েছিলাম কিন্তু বিচার পাইনি।”

এর পাশাপাশি মদন মিত্রের পুত্রবধূ আরও জানিয়েছেন, এই সকল পরিস্থিতি থেকে রেহাই পেতে তিনি বাড়ি ছেড়ে দিদির বাড়িতে থাকা শুরু করেন। কিন্তু সেখানেও তিনি শান্তি পান নি। বিভিন্নভাবে তাকে মানসিক এবং শারীরিক ভাবে নির্যাতন করা হয়েছে। এই সমস্ত অত্যাচারের সমস্ত রকম প্রমাণ আছে বলেও দাবি করেছেন তিনি।

<iframe src=”https://www.facebook.com/plugins/video.php?href=https%3A%2F%2Fwww.facebook.com%2Fswati.roy.2015%2Fvideos%2F661595148538048%2F&show_text=0&width=267″ width=”267″ height=”476″ style=”border:none;overflow:hidden” scrolling=”no” frameborder=”0″ allowfullscreen=”true” allow=”autoplay; clipboard-write; encrypted-media; picture-in-picture; web-share” allowFullScreen=”true”></iframe>

অন্যদিকে এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বিধায়ক মদন মিত্র জানিয়েছেন, “এই ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। তবে এটা সম্পূর্ণ ছেলের ব্যাপার। আমি এই বিষয়ে খোঁজ খবর রাখি না। তবে আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়।”

আরো পড়ুন