রামপুরহাটে এবার কালি পুজোর থিম হাইস্কুল ভবন

রামপুরহাটে এবার কালি পুজোর থিম হাইস্কুল ভবন

রামপুরহাট বীরভূম :-

রামপুরহাটে এবার কালি পুজোর থিম হাইস্কুল ভবন
।হাইস্কুলের ছাত্র বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। এই স্কুলের বহু প্রাক্তন ছাত্র রয়েছেন দেশের বড় বড় পদে। তাছাড়া এবার এই স্কুল রাজ্যের সেরার তকমা পেয়েছে। তাই এবার কালি পুজোয় থিম হিসাবে তুলে ধরা হয়েছে হাইস্কুলকেই। মঙ্গলবার এই মণ্ডপের উদ্বোধন করেন সাংসদ শতাব্দী রায়।

উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি স্পিকার তথা রামপুরহাট এর বিধায়ক ডঃ আশিস বন্দোপাধ্যায়, বীরভূমের সাংসদ শ্রীমতী শতাব্দী রায়, মহকুমা শাসক সাদ্দাম নাভাস, মহকুমা পুলিশ আধিকারিক শায়ন আহমেদ, বীরভূম জেলা তৃণমূলের সহ-সভাপতি সৈয়দ সিরাজ জিম্মি, নম্বর ব্লক সভাপতি আনারুল হোসেন, এক নম্বর ব্লকের সহ-সভাপতি পান্থ দাস, রামপুরহাট পৌরসভার চেয়ারপারসন মীনাক্ষী ভকত, রামপুরহাট টাউন তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি সৌমেন ভকত, রামপুরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের সম্পাদক আরশাদ হোসেন, রাষ্ট্রপতি পুরস্কার প্রাপ্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিখিল কুমার সিনহা এবং ডাকবাংলা পাড়া প্লেয়ারস অ্যাসোসিয়েশন এর সভাপতি তথা রামপুরহাট পৌরসভার অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ মেম্বার আব্বাস হোসেন ও অন্যান্য নেতৃত্ববৃন্দ।
প্রায় অর্ধশতক আগে রামপুরহাট ডাকবাংলা পাড়ার কয়েকজন ক্রীড়াপ্রেমী কালি পুজোর সূচনা করেন। সে সময় উদয় সংঘ নাম দিয়ে পুজো শুরু করা হয়। কয়েক বছর পুজো চলার পরেই জায়গার অভাবে পুজো বন্ধ হয়ে যায়। এরপরেই শম্ভু সিংহ, স্বপন রায়, সমীরণ ঘোষদের মতো কয়েকজন ফুটবলার ডাকবাংলা প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন নাম দিয়ে ফের পুজো শুরু করেন। এরপরেই পুজোয় জাঁকজমক বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। কখনও রাজস্থানের নাটমন্দির, কখন আবার বাহুবলি, মায়াপুরের মন্দিরের থিম গড়ে বীরভূম জেলায় আকর্ষণীয় করে তুলেছে পুজো কমিটি। এবারের থিম রামপুরহাট হাইস্কুল ভবন। পুজো কমিটির অন্যতম কর্মকর্তা আব্বাস হোসেন বলেন, “আমি নিজে হাইস্কুলের ছাত্র। ১৯৮৬ সালে স্কুল প্রতিষ্ঠা হয়। শতাব্দী প্রাচীন এই স্কুলের ছাত্র বিধানসভার বর্তমান ডেপুটি স্পিকার আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। তাছাড়া এই স্কুল এবার রাজ্যে সেরার তকমা লাভ করেছে। তাছাড়া পুজো করার জন্য হাইস্কুল কর্তৃপক্ষ প্রতিবছর মাঠ ছেড়ে দেয়। তাই আমরা এবার হাইস্কুলকেই থিম হিসাবে বেছে নিয়েছি।। স্কুলের দোতলায় মায়ের মূর্তি রাখা থাকবে। দর্শনার্থীদের সিঁড়ি বেয়ে দোতলায় উঠে প্রতিমা

দর্শন করতে হবে। সম্পূর্ণ কালো কলাই দিয়ে প্রতিমা গড়া হয়েছে। থাকছে চন্দন নগরের আলোকসজ্জা। এবারও আমাদের পুজো জেলায় আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে”।
পুজো কমিটির সম্পাদক মিঠু চক্রবর্তী বলেন, “কোভিড বিধি মেনে দর্শনার্থীদের প্রতিমা দর্শন করতে হবে। মুখে মাস্ক বাধ্যতামূলক। মাস্ক ছাড়া কাউকে মণ্ডপের ভিতর ঢুকতে দেওয়া হবে না। তবে মণ্ডপে ঢোকার প্রবেশ পথে দর্শনার্থীদের হাতে স্যানিটাইজার ও মাস্ক দেওয়া হবে”।

আরো পড়ুন