রামপুরহাট পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা

রামপুরহাট পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা

শিয়রে পৌরসভা নির্বাচন।হাতে মাত্র আর কয়েকটা দিন পরেই রাজ্যের অন্যান্য জেলার পৌরসভার পাশাপাশি রামপুরহাট পৌরসভায় নির্বাচন রয়েছে। ইতিমধ্যেই এই পৌরসভার পাঁচটি ওয়ার্ড বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছে তৃণমূল। বাকি ওয়ার্ডগুলিকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা হওয়ার কারণে শাসকদল তৃণমূল এবং বিরোধীরা প্রচারে ব্যস্ত। এরইমধ্যে শাসক দলের হয়ে ১ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল প্রার্থী অষ্টম মন্ডলের হয়ে শনিবার প্রচার করলেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা।

এদিন চন্দ্রনাথ সিনহা এই এলাকায় প্রচার করে আত্মবিশ্বাসের সুরে জানান, এখানকার মানুষের মধ্যে যথেষ্ট উৎসাহ-উদ্দীপনা রয়েছে। সুতরাং অন্যান্য পৌরসভার ওয়ার্ড গুলির মত এই ওয়ার্ডটিও আমরা জিতব।
আশিষ ব্যানার্জি বলেন উন্নয়ন এবং শান্তিকে সামনে রেখে এবারের নির্বাচন।১১বছর ধরে মানুষ যেভাবে পরিষেবা পেয়েছে তারাই পরিপ্রেক্ষিতে এবারের ভোট হবে।
তবে সে যাই হোক এই ওয়ার্ড তৃণমূলের দখলে আসছে তা নিয়ে আত্মবিশ্বাসী শাসকদল তৃণমূল।

এদিন এই মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ক্ষুদ্র মাঝারি ও বস্ত্র দপ্তরের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা ,ডেপুটি স্পিকার আশীষ বন্দ্যোপাধ্যায়,হাঁসন বিধানসভার বিধায়ক অশোক চ্যাটার্জ্জী, জেলা INTTUC সভাপতি ত্রিদিব ভট্টাচার্য, জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অতনু চ্যাটার্জ্জী, শহর সভাপতি সৌমেন ভকত, ১নং ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি আনারুল হোসেন। শহর তৃণমূল কংগ্রেসের সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সমু, শহর তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি সুশান্ত মুখার্জি, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রেকিব, ১নং ব্লক তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি পান্থ দাস, বনহাট অঞ্চলের প্রধান জহিরুল ইসলাম, শহর তৃণমূল কংগ্রেসের সম্পাদক সুদেব দাস, ওয়ার্ড সভাপতি মুকুল রায় সহ তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা।

আরো পড়ুন