রামপুরহাট পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডে মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা

রামপুরহাট পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডে মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা

শিয়রে পৌরসভা নির্বাচন। হাতে মাত্র আর কয়েকটা দিন পরেই রাজ্যের অন্যান্য জেলার পৌরসভার পাশাপাশি রামপুরহাট পৌরসভায় নির্বাচন রয়েছে। ইতিমধ্যেই এই পৌরসভার পাঁচটি ওয়ার্ড বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছে তৃণমূল। বাকি ওয়ার্ডগুলিকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা হওয়ার কারণে শাসকদল তৃণমূল এবং বিরোধীরা প্রচারে ব্যস্ত। এরইমধ্যে শাসক দলের হয়ে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল প্রার্থী মীনাক্ষী ভকতের হয়ে শনিবার প্রচার করলেন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা।

এদিন চন্দ্রনাথ সিনহা এই এলাকায় প্রচার করে আত্মবিশ্বাসের সুরে জানান, এখানকার মানুষের মধ্যে যথেষ্ট উৎসাহ-উদ্দীপনা রয়েছে। সুতরাং অন্যান্য পৌরসভার ওয়ার্ডগুলির মত এই ওয়ার্ডটিও আমরা জিতব। অন্যান্য বছর কি হয়েছে তার দিকে দেখে কোন লাভ নেই। এছাড়াও আশীষ ব্যানার্জি জানান, গত বিধানসভা নির্বাচনে এই ওয়ার্ডে এগিয়েছিল তৃণমূল।

প্রসঙ্গত, ৫ নম্বর ওয়ার্ড আগে দীর্ঘদিন ধরে ছিল কংগ্রেসের। পরে এই ওয়ার্ড দখলে যায় বিজেপির। যে কারণে এই ওয়ার্ডটি এলাকার মানুষদের কাছে পাখির চোখ হয়ে রয়েছে। কারণ এই ওয়ার্ডেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রামপুরহাট পৌরসভার প্রাক্তন প্রসাশক মীনাক্ষী ভকত। তবে সে যাই হোক এই ওয়ার্ড তৃণমূলের দখলে আসছে তা নিয়ে আত্মবিশ্বাসী শাসকদল তৃণমূল।

এদিন এই মিছিলে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা ,
রাজ্যের ডেপুটি স্পিকার ও বিধায়ক আশিষ ব্যানার্জি, জেলা INTTUC সভাপতি ত্রিদিব ভট্টাচার্য,মহিলা জেলা সভাপতি সাহারা মন্ডল, জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অতনু চ্যাটার্জ্জী, শহর সভাপতি সৌমেন ভকত, ১নং ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি আনারুল হোসেন। শহর তৃণমূল কংগ্রেসের সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সমু,যুব নেতা শুভদীপ মন্ডল সহ তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা।

আরো পড়ুন