শোভনের ওয়ার্ডে রত্না প্রার্থী হতেই তেলেবেগুনে বৈশাখী, লোটা কম্বল গোটানোর নোটিশ

শোভনের ওয়ার্ডে রত্না প্রার্থী হতেই তেলেবেগুনে বৈশাখী, লোটা কম্বল গোটানোর নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদন : রাজ্যের চর্চিত যুগলদের মধ্যে অন্যতম হলেন শোভন বৈশাখী। গত কয়েক বছর ধরেই এই যুগল নিজেদের চর্চার ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছেন। দুর্গাপুজোর সময় এই যুগল বিপুল মাত্রায় প্রচারে এলেও পরবর্তীতে বেশ কয়েকদিন তাদের নিয়ে স্তব্ধ ছিল সোশ্যাল মিডিয়া। তবে শাসকদল তৃণমূল কলকাতা কর্পোরেশন নির্বাচনের জন্য প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতেই শুরু ফের চর্চা।

কলকাতা কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করার পর বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় রত্না চ্যাটার্জীকে একটি আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন। এই আইনি নোটিশ পাঠানোর মূলে রয়েছে পর্ণশ্রীর মহারানি ইন্দিরা দেবী রোডের ১৩৯ ডি/৪ নম্বর রোডের একটি বাড়ি। যে বাড়িটি ছিল শোভন চ্যাটার্জীর। তবে এই বাড়িটি বর্তমানে শোভন বাবু বিক্রি করে দিয়েছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

শোভন বাবু তার ওই বাড়িটি বিক্রি করে দিলেও সেই বাড়িতে রয়েছেন তার স্ত্রী রত্না চ্যাটার্জী এবং সন্তানরা। এখন ওই এলাকা অর্থাৎ ১৩১ নম্বর ওয়ার্ড, যে এলাকা শোভন বাবুর এলাকা নামে পরিচিত এবং যেখান থেকেই তিনি জয়লাভ করে মেয়র হয়েছিলেন সেখানে তৃণমূল রত্না চ্যাটার্জীকে প্রার্থী করেছে। স্বাভাবিকভাবেই বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে রাজনীতিতে আলাদা শঙ্কা তৈরি হচ্ছে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তৃণমূল ছাড়ার পর রাজনীতিতে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শোভন চ্যাটার্জি কখনো বিজেপি ঘনিষ্ঠ, কখনো আবার তৃণমূল ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্ঠা করেন। কিন্তু কোথাও তারা সেই ভাবে ঘনিষ্ঠতা অর্জন করতে পারেননি। এমন পরিস্থিতিতে আবার রত্না চ্যাটার্জীকে আলাদা গুরুত্ব গুরুত্ব দিচ্ছে শাসক দল। স্বাভাবিকভাবেই কপালে ভাঁজ পড়তে শুরু করেছে শোভন বৈশাখীর, বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

এসবের মাঝেই যখন রত্না চ্যাটার্জীকে শোভন চ্যাটার্জীর ওয়ার্ডের প্রার্থী ঘোষণা করা হলো সেই সময়ই বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় লোটাকম্বল গোটানোর জন্য আইনি নোটিশ পাঠালেন রত্না চ্যাটার্জীকে। যেহেতু শোভন চ্যাটার্জীর বাড়ি তিনি কিনে নিয়েছেন তাই তাদের ওই বাড়ি ছেড়ে দেওয়ার জন্য এই আইনি নোটিশ। যদিও রত্না চ্যাটার্জী এই বিষয়টিকে একপ্রকার গুরুত্ব না দিয়ে এই হাসির ছলে জানিয়েছেন, “আমি লোটাকম্বল গুছিয়েই রেখেছি। ভোটটা হলেই বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যাবো।”

আরো পড়ুন