৪৪ ডিগ্রী তাপমাত্রা ছুঁই ছুঁই ,আর তাপপ্রবাহ জেরে পোল্ট্রী ফার্মে মৃত্যু হচ্ছে শয়ে শয়ে মুরগির। আকাশ ছোয়া দাম বাড়তে পারে মুরগির মাংসের এমনি আশঙ্কা।

৪৪ ডিগ্রী তাপমাত্রা ছুঁই ছুঁই ,আর তাপপ্রবাহ জেরে পোল্ট্রী ফার্মে মৃত্যু হচ্ছে শয়ে শয়ে মুরগির।
আকাশ ছোয়া দাম বাড়তে পারে মুরগির মাংসের এমনি আশঙ্কা।

বোলপুর, ১৮ এপ্রিল : তীব্র দাবদাহে মৃত্যু হচ্ছে শয়ে শয়ে পোল্ট্রি মুরগির৷ আর এর কারণে আগুন মতো দাম বৃদ্ধি পেতে পারে মুরগির মাংসের।
বর্তমানে কিলো পতি ২৪০ টাকা।বোলপুরের বেশ কয়েকটি ফার্মে কয়েকদিন ধরেই মৃত অবস্থায় পাওয়া যাচ্ছে মুরগি৷ স্বাভাবিক ভাবেই মাথায় হাত ব্যবসায়ীদের৷ কয়েক দিন ধরেই বীরভূমের তাপমাত্রা ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে৷ কখনও কখনও ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যাচ্ছে তাপমাত্রা। তীব্র দাবদাহে নাজেহাল সাধারণ জনজীবন৷ অতিষ্ঠ পশু-পাখিরাও৷ শ্রীনিকেতন আবহাওয়া দপ্তরের তরফে দক্ষিণবঙ্গে তাপপ্রবাহের সতর্কতাও জারি করা হয়েছে। বইছে লু৷
এই তাপপ্রবাহের কারনে মৃত্যু হচ্ছে পোল্ট্রি মুরগির। বোলপুরের সিয়ান এলাকায় প্রচুর পোল্ট্রি মুরগির ফার্ম রয়েছে। এমনিতেই, গরমে মাংসের বিক্রি কমে গিয়েছে। কমেছে ডিমের চাহিদাও। গরম থেকে মুরগিদের বাঁচাতে ফার্মের জলছাদ করা হয়েছে। দেওয়া হয়েছে ফ্যান। তা সত্ত্বেও প্রত্যহ শয়ে শয়ে মুরগি মারা যাচ্ছে৷ দাবদাহ এতটাই বেশি যে কোন কিছুতেই কাজ হচ্ছে না৷
উল্লেখ্য, পোল্ট্রি মুরগি এমনিতেই দুর্বল প্রাণী৷ অতিরিক্ত গরম ও ঠাণ্ডা সহ্য করতে পারে না৷ এবছর, তাপমাত্রা পারদ চড়তেই থাকছে৷ এখনই বৃষ্টির কোন রূপ সম্ভাবনা নেই, জানিয়ে দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। এই পরিস্থিতিতে তীব্র গরমে প্রতিটি ফার্মে রোজ শয়ে শয়ে মৃত মুরগি মিলছে৷ যাতে স্বাভাবিক ভাবেই মাথায় হাত পড়েছে ব্যবসায়ীদের৷
প্রসঙ্গত, এই তীব্র দাবদাহ থেকে বল্লভপুর অভয়ারণ্যের হরিণদের রক্ষা করতে জলের সঙ্গে ওয়ারেশ, গ্লুকোজ দেওয়া হচ্ছে৷ শরীর ঠাণ্ডা রাখতে ভূট্টা পাতা, সবুজ পাতা খাওয়ানো হচ্ছে। নিয়মিত নজর রাখছেন চিকিৎসকেরা৷

এক পোল্ট্রি মুরগির ফার্ম মালিক মনির শেখ বলেন, “রোজ এসে দেখছি ৫০ থেকে ৬০ টি করে মুরগি মরে পড়ে আছে৷ এত গরম পড়েছে, সান স্ট্রোক হয়ে মারা যাচ্ছে মুরগি৷ ছাদে জল দিচ্ছি। ফ্যান লাগিয়ে দিচ্ছি তাতেও কাজ হচ্ছে না৷ শুধু আমার ফার্মে নয়, আসেপাশের ফার্মেও একই অবস্থা।”

আরো পড়ুন