বগটুই গ্রামে তৃণমূল কর্মী-সমর্থকের বাড়িতে আগুন

ফের বীরভূমের বগটুই গ্রামে তৃণমূল কর্মী-সমর্থকের বাড়িতে আগুন। জানলা দিয়ে ঘরের মধ্যে দলীয় পতাকায় আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। কে বা কারা কী উদ্দেশ্যে এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা এখনও জানা যায়নি। ঘটনাস্থলে পৌঁছে রামপুরহাট থানার পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

 

 

২০২২ সালের ২১ মার্চ। বগটুইবাসীই শুধু নয়, গোটা রাজ্যের মানুষের কাছেই ওই রাতের স্মৃতি টাটকা। আগুনে পুড়ে মৃত্যু হয়েছিল ১০ জনের। এবার সেই বগটুই গ্রামের পূর্ব পাড়ায় তৃণমূল সমর্থক আলম শেখের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। পরিবারের সদস্য মুর্শিদা বিবির দাবি, জানলা দিয়ে দলীয় পতাকা আগুন ধরিয়ে বিছানায় ফেলে দেওয়া হয়। বিছানায় সেই সময় তাঁর ন’মাসের সন্তান শুয়ে ছিল। প্রতিবেশীরা তাঁকে জানান, ঘরের মধ্যে বিছানায় আগুন জ্বলছে। সঙ্গে সঙ্গে এসে বাচ্চাটিকে নিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে যান তিনি। তবে বড় ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। কে বা কারা এই ঘটনা ঘটল তা নিয়ে তিনি কিছু বলেননি। তবে মুর্শিদা বিবির দাবি, তাঁরা তৃণমূল করেন তাই হয়তো এধরনের ঘটনা ঘটেছে।

 

 

প্রসঙ্গত, ক্ষমতা দখলের লড়াইকে কেন্দ্র করে গত বছর ২১ মার্চ বগটুই গ্রামে পুড়িয়ে খুন করা হয় ১০ জনকে। যার মূলে ছিল পঞ্চায়েত দখল। বড়শাল পঞ্চায়েতের মধ্যেই পড়ে বগটুই। প্রথমে সেই পঞ্চায়েতের উপপ্রধান ভাদু শেখকে গুলি ও বোমা মেরে খুন করা হয়। তারই পালটা বগটুই গ্রামে ১০ জনকে পুড়িয়ে খুন করা হয়। এবাপ পঞ্চায়েত ভোটে বগটুই গ্রামে জোড়াফুলই ফুটেছে। এবার দলের সমর্থকদের বাড়িতে আগুন লাগার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

রামপুরহাট ১ নং ব্লক সভাপতি সৈয়দ সিরাজ জিম্মি বলেন বগটুই শান্ত ছিল সেটাকে অশান্ত করার প্রচেষ্টা ,পুলিশকে অনুরোধ করা হয়েছে সঠিক তদন্ত করে দোষীদের গ্রেফতার করার জন্য।

আরো পড়ুন