লটারিতে কোটিপতি ভাংড়ি ফেরিওলা, আতঙ্কে আশ্রয় রামপুরহাট থানায়

লটারিতে কোটিপতি ভাংড়ি ফেরিওলা, আতঙ্কে আশ্রয় রামপুরহাট থানায়

অমলেন্দু মন্ডল :-

একেই বলে ভাগ্য বদল। দিন আনা দিন খাওয়া ভাংড়ি ফেরিওয়ালা থেকে রাতারাতি কোটিপতি। নাগাল্যান্ড রাজ্য লটারিতে প্রথম পুরস্কার এক কোটি টাকা জিতে রাতারাতি কোটিপতি হলেন রহমত সেখ নামে এক ভাংড়ি ফেরিওয়ালা। রামপুরহাট থানার কাস্টগড়া গ্রামের বাসিন্দা তিনি। তবে এই ভাগ্যবদলে খুশির বদলে আতঙ্ক গ্রাস করেছে রহমতকে। এবার তিনি আতঙ্কে রামপুরহাট থানার শরণাপন্ন হলেন তিনি। তবে পুলিশি নিরাপত্তা দিয়ে রামপুরহাট থানার আনা হয় তাকে।

জানা গিয়েছে, সংসারে অভাব অনটন নিত্যদিন। সংসারে অভাব-অনটনের মধ্যেই কোনওমতে দিন কাটত রামপুরহাটের কাস্টগড়া গ্রামের রহমত শেখের । ফেলে দেওয়া নষ্ট হয়ে যাওয়া জিনিস কিনে তিনি অন্যত্র জায়গা বিক্রি করতো। তাতে যেটুকু উপার্জন হত তা দিয়ে কোনোরকমে দিন চলে যেত। পরিবারে স্ত্রী ছাড়াও রয়েছে তিন কন্যাসন্তান। গতকাল পর্যন্ত একদিনের খাবার জোটানোই কষ্টকর ছিল বলে জানালেন স্ত্রী সারজিনা বিবি। টাকা পেয়ে তিন মেয়ের বিয়ে দেওয়া ও নিজস্ব পাকা বাড়ি করার সাধ রয়েছে বলে জানান রহমত সেখ।

জানা গিয়েছে মাঝে মধ্যেই লটারি টিকিট কিনত রহমত। যদি অভাবের সংসারে একটু স্বচ্ছলতা আসে এই ভেবে। তবে গত বুধবারও তিনি স্থানীয় দোকান থেকে একটি লটারি টিকিট কিনেছিলেন। তবে সেই লটারি টিকিট যে তার জীবনকে এক মুহূর্তে বদলে দেবে, তা একটুও টের পায়নি সে। বুধবার রাত ৮ টার পর জানাজানি হয় এক কোটি টাকা সে জিতেছে। খবর ছড়িয়ে পড়তেই কয়েকশো মানুষের ভিড় রহমতের বাড়িতে। রাত বাড়ার সাথে সাথে ভিড় বাড়তে থাকে ৷ রহমতের আতঙ্কও বাড়তে শুরু করে। তিনি তড়িঘড়ি খবর দেন রামপুরহাট থানার পুলিশকে ৷ পুলিশ নিরাপত্তা দিয়ে গাড়ি করে তাকে রামপুরহাট থানায় আনেন ও রামপুরহাট থানা নিজেদের নিরাপত্তা দিয়ে তাকে রাখেন ও তার থাকা খাওয়া সব রকম ব্যবস্থা করা হয়।

আরো পড়ুন