দল বিরোধী কাজের অভিযোগ, বীরভূমে বহিস্কৃত এক বিজেপি নেতা

দল বিরোধী কাজের অভিযোগ, বীরভূমে বহিস্কৃত এক বিজেপি নেতা

বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ঘর গোছাতে ব্যস্ত গেরুয়া শিবিরও। বিধানসভা ভোটে সেভাবে নিজেদের শক্তিশালী করতে পারেনি বিজেপি শিবির। তারপর উপনির্বাচন থেকে পৌরসভা ভোট সবেতেই বিজেপির মুখ পুড়েছে। অন্যদিকে দলীয় কর্মীরাই বিজেপির বিরোধিতা করছে বলে বারংবার অভিযোগ উঠেছে দলের অন্দরমহলে। ফের আরও একবার দল বিরোধী কাজে যুক্ত থাকায় এক নেতৃত্বকে বহিষ্কার করল বীরভূম জেলা বিজেপি।

বিজেপির রাজ্য কার্যালয়ের সম্পাদক প্রণয় রায় দলীয় প্যাডে চিঠি দিয়ে অনিল সিংকে দল থেকে বহিষ্কার করার কথা জানান। অভিযোগ ছিল, দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও দল বিরোধী কাজের পাশাপাশি জেলা ও রাজ্য নেতাদের বিরুদ্ধে নানারকম দলবিরোধী মন্তব্য বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার চালাতেন বলেও অভিযোগ ছিল তার বিরুদ্ধে।

জেলা বিজেপি সুত্রে জানা গিয়েছে, অনিল সিং মূলত নলাটীর বাসিন্দা। দীর্ঘ সময় ধরে বলেন বিজেপি তে ছিলেন। বর্তমানে বিজেপির বীরভূম জেলা কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি। এছাড়াও গত ২১ বিধানসভা ভোটে নলহাটি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে তিনি প্রার্থীও হয়েছিলেন। তবে বেশ কিছু ধরে জেলা সভাপতি ধ্রুব সাহা বিরুদ্ধে তৃণমূলের গোপন আঁতাত নিয়ে সবর হয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়াতে।

এছাড়াও সম্প্রতি বীরভূমের বিজেপি নেতা কালোসোনা মণ্ডল কে সিবিআই তলব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তিনি। তিনি বলেন, ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনায় সিবিআই তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। এরপর তার ফোনের কললিস্ট ধরে ডাকা হচ্ছে বিভিন্ন ব্যক্তিকে। একই ভাবে ডাকা হিয়েছিল কালোসোনা মণ্ডলকেও। সেনিয়ে তিনি অভিযোগ করেন, তৃণমূলের সাথে গোপনে যোগাযোগ রাখছে জেলা সভাপতি ধ্রুব সাহা থেকে শুরু করে অন্যান্য কর্মীরাও।

বহিস্কৃত বিজেপি নেতা অনিল সিং এর মন্তব্য নিয়ে কোনোরকম বক্তব্য শোনা যায়নি জেলা স্তরে। বিজেপি জেলা সভাপতি ধ্রুব সাহা এনিয়ে কিছু মন্তব্য করেননি।

আরো পড়ুন